Wednesday, April 23, 2014

মারো চাচী , জোরো ঠাপ মারো সোনা ১

আমার গ্রামের বাড়ি থেকে আমার এক দূর সম্পকের চাচা তার বউকে নিয়ে আমাদের বাড়ি আসলো। আসার কারন চাচীকে ডাক্তার দেখাবে। চাচা বছর দু এক আগে বিয়ে করেছে। চাচার বয়স ৪০ র বেশি হবে আর চাচি আমার চেয়ে ২/৩ বছরের ছোট, ২৩/২৪ হবে। চাচীর চেহারা খুবই সাধারন। একবার দেখলে আর আর্কষন করার মত কিছু থাকেনা, আর ফিগার কেমন তা বুঝতে পারলামনা কারন সে খুব কন্সারভেটিভ ভাবে থাকে। আমার খুব বিরক্ত লাগল কারন আমার বেডরুম ছেড়ে দিতে হবে তারা যত দিন থাকবে। চাচা ৭ দিন তার বউ কে বিভিন্ন ডাক্তার দেখিয়ে ও টেষ্ট করে সঙ্গে নিয়ে আসা টাকা পয়সা সব শেষ করে ফেলল কিন্তু কোন রোগ ধরা পরল না। চাচা বা চাচি কেউ ঠিক মত কিছু খুলে বলেনা কি অসুখ হয়েছে। নিজের রম থেকে বিতারিত হওয়ায় আমার দিনগুলো খুব খারাপ কাটতে লাগল কারন নিজের ফ্রীডম এর ১২ টা বেজে গেল।
১ সপ্তাহ ধরে শুধু মোবাইলে পর্ন দেখতে হচ্ছে, কম্পউটারে ইন্টারনেট এ পর্ণসাইট গুলোর আপডেট নিতে পারছি না। ১ সপ্তাহ পর চাচা টাকা আনার জন্য গ্রামে গেল, চাচীকে ঢাকায় রেখে।
এরপর শুরু হোল আসল ঘটনা। চাচা চলে যাওয়ার পরদিন রাত ১২.৩০ টায় আমি বারান্দায় দাড়িয়ে সিগারেট খাচ্ছি। হঠাত ফুপিয়ে কান্নার শব্দ শুনতে পেলাম। কান্নার উৎস খুজতে গিয়ে বুঝলাম আমার রুম থেকে আসছে। আমি চিন্তা করলাম চাচী হয়ত অসুস্থ বোধ করছে তাই কান্না করছে। রুমে গিয়ে চাচী কে দেখলাম অন্ধকারে বসে কান্না করছে।
আমিঃ চাচী আপনার কি শরীর খারাপ লাগছে?
চাচিঃ (চোখ মুছতে মুছতে) অহ তুমি। নাহ আমি ঠিক আছি। এমনি মনটা ভাল নেই।
এই প্রথম আমি ঠিকমত চাচীকে দেখতে লাগলা্ম। কারন চাচীর বুকের উপর কাপড় নাই। চাচী হয়ত সেটা খেয়াল করে নাই। জামার উপর দিয়ে চাচী বুক উধত্ত ভাবে তার আকার বুঝাচ্ছে। এত রাতে একা আলো আধারের মাঝে চাচীকে খুব সেক্সি লাগছিল। কিছুটা ঝুকে বসার কারনে তার বুকের ভাজটা দেখা যাচ্ছিল। তাকে নতুন দৃষ্টিতে দেখতে লাগলাম।
আমিঃ চাচী ঘুম না আসলে বারান্দায় যাই চলুন। খোলা বাতাসে ভাল লাগবে।চাচীকে নিয়ে বারান্দায় এসে গ্রিল ধরে দাড়িয়ে চাচীর দেহটাকে মাপার চেষ্টা করতে লাগলাম। রাস্তা থেকে আলো আসার কারনে এইখানে অনেক পরিস্কার দেখা যাচ্ছে। চাচী একটা সুতির জামা পরেছে ভিতরে ব্রা পরেছে। রুম থেকে বের হওয়ার সময় চাচি ওড়নাটা বুকে দিয়ে এসেছে কিন্তু ঠিক মত দেওয়া হয়নাই। বুক দুটো নিটোল মাপা মাপা। ৩৪” সাইজের দুটো বুক আলাদা আলাদা ভাবে দুই সাইডে উচু হয়ে আছে। পাছাটা ধুমসানো না কিন্তু ভারি। আমি আস্তে আস্তে খেজুরে আলাপ শুরু করলাম।
আমিঃ চাচী আপনাকে চাচী ডাকতে একটু কষ্ট হয়। চাচী হওয়ার জন্য আপনার বয়সটা একটু বেশি কম হয়ে যায়। সম্পর্কটা ভাবি টাইপ এর কিছু হলে ভাল হত। চাচী ডাকলেই কেমন একটা মুরুব্বি মুরুব্বি ভাব চলে আসে। আপনার বয়স মনে হয় আমার সমানই হবে।
চাচীঃ একটু হেসে তাই নাকি। তা আমার বয়স কত মনে হয় তোমার?
আমিঃ ২৫/২৬ এর বেশি হবেনা।
চাচী মুচকি মুচকি হাসতে লাগল।
আমিঃ কি বয়স কি কম বলে ফেললাম?
চাচীঃ তোমার কি মনে হয় আমি এতই বুড়ো?
আমিঃ না মানে চাচার বয়স হিসাব করে মনে হল এই রকমই হওয়া উচিত।
চাচীঃ আমার বয়স ২৩ বছর চলছে।
আমিঃ আসলে চাচার পাশে আপনার বয়সটা অনেক কম হয়ে যায়তো তাই ভুল বলে ফেললাম।
তারপর হাসতে হাসতে বললাম তাহলে আমার চেয়ে ছোট বয়সের একজনকে এমন মুরুব্বি মনে করে কথা বলতে হবে?
চাচীঃ সম্পর্কটাতো সে রকমই। আচ্ছা ঠিক আছে তুমি আমাকে তুমি করে বলতে পার কিন্তু সবার সামনে না তাহলে কেউ কিছু মনে করতে পারে।
দুজন একজন আরেকজনের দিকে তাকিয়ে হেসে দিলাম। দাঁড়িয়ে থাকতে পা ব্যথা করতেছিল তাই আমি বারান্দায় বসে পরলাম। চাচী আমার পাশে বসে পরল আমি একটা সিগারেট ধরিয়ে বললাম চাচী মাইন্ড করলেন? “নাহ” এরপর দুইজন মিলে প্রায় ১ ঘন্টা গল্প করলাম। চাচী দেখলাম কিছুটা ফ্রী হয়ে গেছে। টুকটাক গল্পও করছে তার জীবনের বিভিন্ন বিষয়ে। জানালো চাচীরা ৬ বোন। সে সবার ছোট। ক্লাস ৭ পর্যন্ত পড়াশুনা করেছে। অনেক ইচ্ছে ছিলো কলেজ পাশ করার। কিন্তু কোনো এক কারনে তার আর পড়াশুনা হয়নি। দরিদ্র বাবা আর ভাইরা আগের বোনদের ভালো বিয়ে দিয়েছে আর তার বিয়ের সময় আর সামর্থ না থাকায় তার চাচার সাথে বিয়ে হয়। তবে চাচা খুব ভাল মানুষ। চাচীর সব বিষয়ে খেয়াল রাখে।
বেচারা এখন অনেক সমস্যায় আছে কারন এখানে আসার সময়ই ধার করে টাকা নিয়ে এসেছে। এখন আবার গ্রামে গিয়ে টাকা আনতে অনেক সমস্যা হবে। হয়তবা পারবেই না। আবার চিকিৎসা না হলে চাচীর চেয়ে চাচার সমস্যা বেশি হবে।
আমিঃ তোমার কি আসুখ হয়েছে?
চাচীঃ (আমতা আমতা করতে করতে) না মানে ডাক্তারইতো অসুখ ধরতে পারল না।
আমিঃ কিন্তু কি সমস্যা হয়? কোন মেয়েলি সমস্যা হলে গাইনী ডাক্তার দেখালে ঠিক হয়ে যাবে।
চাচীঃ আসলে সমস্যাটা এতই অদ্ভুত যে ডাক্তারকেও ঠিক মত বলতে পারি নাই। আর এই অসুখের জন্য কোন ডাক্তার দেখাবো সেটাও বুঝতে পারছি না।
আমিঃ আমার একটা ডাক্তার ফ্রেন্ড আছে। ওকে তোমার সমস্যা বলে দেখতে পারি, ও হয়ত কোন ভালো ডাক্তারের ঠিকানা দিতে পারবে। আমার কাছে বলো ফ্রেন্ড মনে করে দেখ সমস্যা হবেনা।
চাচীঃ আসলে আমার কোন সমস্যা আমি ফিল করি না। সমস্যাটা তোমার চাচার। সে বলে যৌণ মিলনের সময় আমি নাকি এক সময় অজ্ঞান হয়ে যাই। কিন্তু আমি সেটা বুঝি না। আমি কখন অজ্ঞান হয়ে যাই আর কখন জ্ঞান ফিরে আসে টের পাইনা। প্রথম প্রথম তোমার চাচা এইটা খেয়াল করে নাই। কিন্তু ধীরে ধীরে সে বুঝতে পারল আমি অসুস্থ। এখনতো অসুখের ভয়ে সে মিলন প্রায় বন্ধ করে দিয়েছে।
আমিঃ এইরকম অসুখের কথাতো জীবনে শুনি নাই। চাচা ছাড়া কেউ কি তোমাকে এই কথা বলেছে?
চাচীঃ আমি তোমার চাচা ছাড়া কারো সাথে এইসব করিনাই যে অন্য কেউ আমাকে বলবে।
আমিঃ তাহলে তো ডাক্তারের ও বুঝতে প্রবলেম হবে কারন কোন টেস্টেও ধরা পরবে না।
আমার মনে হল চাচী গুল মারছে। চাচা হয়ত অনেকদিন সেক্স করে নাই তাই চাচী এইসব গল্প বলছে।মুখ ফুটে বলতে পারছে না চোদাচুদি করার কথা। আমার মাথায় তখন শয়তানি বুদ্ধি চাপলো। চিন্তা করলাম চাচীকে একটু খেলিয়ে দেখি কি হয়।
আমিঃ চাচী তোমার মনে হয় অসুখের ব্যপারে আরেকটু ডিটেইল বুঝে তারপর কোন ডাক্তার দেখাবে তা ঠিক করা উচিত। আমি আমার ফ্রেন্ডের সাথে কথা বলে দেখি ও কি বলে।
চাচীঃ ঠিক আছে। ঘুমতে যাই। অনেক রাত হয়েছে। এইবলে চাচী তার পাছা নাচিয়ে আমার রুমে চলে গেল আর আমি ছুটলাম বাথরুমে, চাচীকে নিয়ে কল্পনার চোদাচুদি শুরু করতে।
read more